করোনা কোন ভাষার শব্দ ? – Bangla MCQ


প্রশ্ন:  করোনা কোন ভাষার শব্দ  ? 

ক.  জাপানি 

খ.  চায়না

গ.  ল্যাটিন

ঘ.  ইংরেজি 

উত্তর:  (গ) ল্যাটিন ভাষার  । 

ব্যাখ্যা: 

করোনা ‘ ল্যাটিন ‘ ভাষার শব্দ । মূলত করোনাভাইরাস শব্দটি ল্যাটিন ভাষার ‘ করোনা ‘ থেকে নেওয়া হয়েছে । করোনা অর্থ ‘ মুকুট ‘ ।

করোনা ভাইরাস (COVID-19) হলো এক নতুন ধরনের ভাইরাস যা ২০১৯ সালের শেষ দিকে চীনের উহান শহরে প্রথম সনাক্ত করা হয়। এটি দ্রুত বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে এবং একটি বৈশ্বিক মহামারীতে পরিণত হয়। এই ভাইরাসের সংক্রমণ, প্রতিরোধ ও এর প্রভাব সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

 সংক্রমণ:

করোনা ভাইরাস একটি শ্বাসযন্ত্রের ভাইরাস যা প্রাথমিকভাবে সংক্রমিত ব্যক্তির হাঁচি, কাশি বা কথা বলার সময় নির্গত ড্রপলেটের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়াও, ভাইরাসটি দূষিত পৃষ্ঠ স্পর্শ করার পর চোখ, নাক বা মুখ স্পর্শ করার মাধ্যমেও সংক্রমিত হতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে ভাইরাসটি কিছুক্ষেত্রে বাতাসেও টিকে থাকতে পারে, যা এটিকে আরও সংক্রামক করে তোলে। 

 

লক্ষণ:

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে জ্বর, শুকনো কাশি, শ্বাসকষ্ট, গলা ব্যথা, এবং ক্লান্তি। কিছু ক্ষেত্রে, রোগীরা স্বাদ ও গন্ধের অনুভূতি হারাতে পারে। গুরুতর সংক্রমণে নিউমোনিয়া, তীব্র শ্বাসকষ্ট সিনড্রোম, অঙ্গবিকলতা এবং এমনকি মৃত্যু হতে পারে। বিশেষত বয়স্ক এবং যাদের পূর্বে থেকে শারীরিক অসুস্থতা রয়েছে, তাদের ক্ষেত্রে ঝুঁকি বেশি।

 প্রতিরোধ:

করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য বেশ কয়েকটি প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত:

1. মাস্ক পরা:  জনবহুল স্থানে এবং যেখানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব নয় সেখানে মাস্ক পরা অত্যন্ত জরুরি।

2.  হাত ধোয়া:  নিয়মিতভাবে হাত ধোয়ার মাধ্যমে ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ করা যায়।

3.  সামাজিক দূরত্ব:  অপরিচিত বা অসুস্থ ব্যক্তিদের কাছ থেকে কমপক্ষে ছয় ফুট দূরত্ব বজায় রাখা উচিত।

4.  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশিকা মেনে চলা:  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশিকা মেনে চলা।

 প্রভাব:

করোনা ভাইরাস মহামারী বিশ্বের অর্থনীতি, শিক্ষা এবং সামাজিক জীবনে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে। ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ হয়ে যাওয়া এবং লকডাউনের কারণে অনেক মানুষ তাদের চাকরি হারিয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি অনলাইন শিক্ষার দিকে ঝুঁকেছে, যা প্রযুক্তিগত সুবিধা এবং ইন্টারনেট সংযোগের অভাবে অনেক শিক্ষার্থীর জন্য সমস্যার কারণ হয়েছে।

 চিকিৎসা এবং ভ্যাকসিন:

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে বেশ কয়েকটি ভ্যাকসিন তৈরি করা হয়েছে এবং বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত হচ্ছে। ফাইজার-বায়োএনটেক, মডার্না, এবং অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিনগুলি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে। ভ্যাকসিনগুলি সংক্রমণ রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে এবং এর ফলে মৃত্যুহারও কমেছে। এছাড়া, চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন ওষুধ এবং থেরাপি ব্যবহৃত হচ্ছে, যার মধ্যে রেমডেসিভির এবং ডেক্সামেথাসন উল্লেখযোগ্য।

 উপসংহার:

করোনা ভাইরাস মহামারী আমাদের জীবনধারাকে সম্পূর্ণভাবে পরিবর্তন করে দিয়েছে। এর প্রভাব থেকে মুক্তি পেতে আমাদের সকলের সচেতন থাকা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা অত্যন্ত জরুরি। ভ্যাকসিন গ্রহণ এবং সঠিক প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে আমরা এই মহামারী থেকে দ্রুত মুক্তি পাব বলে আশা করা যায়।

 



Source link

Leave a Comment